২৬ মার্চ, ২০১৩

ত্বকের যত্নে ময়েশ্চারাইজার

তকের যত্ন নিয়ে তরুণী-মহিলা-গৃহবধুদের দুশ্চিন্তার অন্ত নেই। সবাই চান সুন্দর মসৃণ কোমল ত্বক। ঠিক যেন কিশোরীর মত। ত্বকের ধরন বুঝে সামান্য যত্ন এবং প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেয়া গেলে ত্বক বিবর্ণ হওয়া, ত্বকে বাদামী স্পট পড়া, ত্বক কালো বর্ণ ধারণকরা, ত্বক রুক্ষ হওয়া ইত্যাদি কিছু সাধারণ সমস্যা থেকে রক্ষা করা যায়। প্রয়োজন হয়না অত্যন্ত ব্যয়বহুল লেজার ও অন্যান্য কসমেটিক চিকিৎসা। আর ত্বক সুন্দর রাখতে ত্বকের ধরণ বুঝে নিয়মিত ময়েশ্চেরাইজার ব্যবহার করা উচিত। এতে ত্বকের শুষ্কতা-রুক্ষ্মতা রোধ করে এবং ত্বক মসৃণ ও কোমল হয়। তবে অবশ্যই ত্বকের ধরন বুঝে ময়েশ্চারাইজার বা লোশন ব্যবহার করা উচিত। শুধু শুষ্ক তক বা তৈলাক্ত ত্বক বলাই যথেষ্ট নয়। ১৬ ধরনের ত্বক রয়েছে। আর ত্বক পরিচর্যায় শুধু নামী-দামী ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে তাই নয়, সামান্য অলিভ অয়েল বা সাদা ভ্যাসলিন বা ভ্যাসলিন লোশন ব্যবহার করতে পারেন। সামান্য পরিমাণ সাদা ভ্যাসলিন বা ভ্যাসলিন লোশন মুখ ও ত্বকে ব্যবহার করলে ত্বক মসৃণ ও কোমল হয়। ভ্যাসলিনের সঙ্গে কিঞ্চিত পানি মিশিয়ে নিতে পারেন, যদিও ভ্যাসলিন-পানি একসঙ্গে মেশানো খানিকটা কঠিন।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন